দরকার কয়েকফোটা রক্ত



বরিশাল নিউজ।। বিশ্বে প্রতি চার হাজার শিশুর একজন জন্মগত থাইরয়েড হরমোনের অভাব নিয়ে জন্মগ্রহন করে। আর বাংলাদেশে জন্ম নেয়া দুই হাজার শিশুর মধ্যে একজন জন্মগত হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্ত।  যা বৈশ্বিক হারের প্রায় দ্বিগুন। এতে শিশুদের মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্থ হয় এবং প্রতিবন্ধী হয়ে উঠে।

 
ইনিষ্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার মেডিসিন এ্যান্ড অ্যালায়েড সায়েন্স এর বরিশালের পরিচালক ডা: নাফিসা জাহান -বরিশাল নিউজ

 বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ এর লেকচার গ্যালারীতে সোমবার সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচীর ‘নবজাতকের মধ্যে জন্মগত হাইপোথাইরয়েড রোগের প্রদুর্ভাব সনাক্তকরন’ নামক সেমিনারে এই তথ্য উপস্থাপন করা হয়।

ইনিষ্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার মেডিসিন এ্যান্ড অ্যালায়েড সায়েন্স এর পরিচালক ডা: নাফিসা জাহান এই সায়েন্টিফিক সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন। প্রধান অতিথি ছিলেন শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা: মনিরুজ্জামান শাহীন, বিশেষ অতিথি ছিলেন শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা: বাকির হোসেন, বিএমএর জেলা সভাপতি ডা: ইশতিয়াক হেসেন, প্রকল্প পরিচালক ড. মোহাম্মদ আনোয়ার উল আজিম।

সেমিনারে বরিশালের চার শতাধিক চিকিৎসক অংশগ্রহন করেন।
সেমিনারে বক্তারা জানান, শিশুর জন্মের ৪ সপ্তাহের মধ্যে জন্মগত হাইপোথাইরয়েডিজম নির্ণয় ও চিকিৎসা শুরু করা গেলে তাকে শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধিতার অভিশাপ থেকে রক্ষা করা সম্ভব। এজন্য দরকার শিশুটির কয়েকফোটা রক্ত আর বাবা-মায়ের সচেতনতা। বিষয়টি তারা সরকারের স্বাস্থ্য পলিসিতে গ্রহন করার যৌতিকতা তুলে ধরে জানান,শ্রীলঙ্কা,ফিলিপাইন এবং ভারতে হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্তের সংখ্যা খুবই কম।

বর্তমানে দেশে নবজাতকের জন্মগত হাইপোথাইরয়েড রোগের প্রাদুর্ভাব সনাক্তকরন শীর্ষক একটি প্রকল্প চালু রয়েছে।

বরিশাল নিউজ/স্টাফ রিপোর্টার