করোনা:শারীরিক দূরত্বে থাকুন- বাসদ

বরিশাল নিউজ।। কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস মোকাবেলার সামাজিক দূরত্বের কারনে দেখা যাচ্ছে অনেকেই নিজে থেকেই সরে রয়েছেন। তাই সামাজিক দূরুত্ব নয় শারীরিক দূরুত্ব বজায় রেখে প্রশাসনসহ সকল দলের সমন্বিত হয়ে নগরীর খেটে খাওয়া দৈনিক আয়ের মানুষসহ অসহায়,দুস্থ ও বস্তিবাসিদের পাশে দাড়াবার জন্য আহবান জানানো হয়েছে বরিশালে।  বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ আয়োজিত এক উন্মুক্ত আলোচনা সভায় এ আহবান জানান বিশিষ্টজনরা।

নগরীর ফকিরবাড়ি রোডে বাসদ কার্যালয়ে রবিবার দুপুরে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

দলটির বরিশাল জেলা কমিটির আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার ইমনান হাবীব রুমনের সঞ্চলনায় উন্মুক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বরিশাল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক প্রফেসর এইচ.এম সরকার, বরিশাল জেলা বিএনপি (দক্ষিণ) সভাপতি এবায়েদুল হক চাঁন, বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টি বরিশাল জেলা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল হক নিলু, মাক্সবাদী দল বরিশাল জেলা আহবায়ক সাইদুর রহমান, বরিশাল উদিচী সভাপতি সাংবাদিক সাইফুর রহমান মিরন, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের বরিশাল শাখার সদস্য শেখ সুমন ও তরুন স্বোচ্ছাসেবী সংগঠন সদস্য কামরুন নাহার মোহনা।

উন্মুক্ত আলোচনা সভায় মেডিসিন বিশেষঞ্জ ডা. এইচ.এম সরকার বলেছেন, আমাদের বর্তমান এই পরিস্থিতিতে মানুষকে করোনা সম্পর্কে অবহিত করার মাধ্যমে তাদেরকে সচেতন সৃষ্টি করার পাশাপশি তারা যেন শারীরিক দুরুত্ব বজায় রেখে চলাচল করে।

একই সময় তিনি আরো বলেন, লকডাউন করে বসে থাকলে চলবে না। কারা খাবার পাচ্ছেন না সেবিষয়ে খোঁজ নিয়ে তাদের মাঝে খাবার বন্টন করতে হবে। মনে রাখতে হবে দারিদ্রদের ক্ষুদা করোনার চেয়ে ভয়ংকর। ক্ষুদার্ধ ব্যাক্তিদের শাসন দিয়ে আটকে রাখা যাবে না। তাই সমন্বিতভাবে সকলকে এক হয়ে কাজ করলে এর কিছুটা সমাধান করা সম্ভব বলে তিনি মনে করেন।

পাশাপাশি তিনি আরো বলেন কোনভাবেই রোগকে আড়াল করা যাবে না। যার যার যে সমস্যা আছে সেগুলো চিকিৎসকের কাছে পরিস্কারভাবে তুলে ধরার আহবান জানান।

বরিশাল জেলা বিএনপি সভাপতি এবায়েদুল হক চাঁন বলেন, বর্তমান করোনা সংকটময়কালে জাতীয় পর্যায় থেকে শুরু করে জেলা,উপজেলা ও থানা পর্যায়ে সকলকে নিয়ে কমিটির মাধ্যমে এর সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। একক বা পৃথকভাবে কাজ করে এ সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয় বলেই তিনি মনে করেন।

ওয়াকার্স পার্টি বরিশাল জেলা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল হক নিলু বলেন, যতই মানুষকে গৃহবন্দি করে রাখা হবে ততই খাদ্য সংকট দেখা দেবে। মানুষের পেটে ভাত না থাকলে সেতো রাস্তায় নামবে বেচে থাকার জন্য । এটা শুরুতেই প্রশাসনিকভাবে এই কার্যক্রম চালু করার প্রয়োজন ছিল।

তরুন সংগঠন লাল সবুজের সদস্য কামরুন নাহার মোহনা বলেন, করোনার কারনে আকস্মিকভাবে ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাবার কারনে সেসকল প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীরা মালিক থেকে শুরু করে কারো কাছ থেকে কোন ধরনের আর্থিক ও খাদ্য সহযোগীতা পায়নি। তারা চাইতে পারছে না। কারো কাছে মুখ ফুটে বলতে না পারার কারনেই কিছুই পাচ্ছে না। অন্যদিকে প্রশাসনের হট লাইন সম্পর্কে সমলোচনা করে বলেন পরের কথা কি ভরব আমি নিজেই আমার এলাকার সমস্যার কথা তুলে ধরার জন্য বহুবার চেষ্টা করেছি রিং হলে কেহ ধরে না নতুবা বিজি থাকে।

মোহনা প্রশাসনের হটলাইনটি শতভাগ রিসিভ করার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান। সেই সাথে হাসপাতালে করোনার দোহাই দিয়ে চিকিৎসকরা সাধারন রোগীদের নাজেহাল ও হেনস্তা করার অভিযোগ রয়েছে।

আরোা পড়ুন: ত্রানের দাবিতে রাস্তায় সরোয়ারের এলাকার মানুষ

এসময় বাসদ বরিশাল জেলা কমিটির সদস্য সচিব ডা. মনিষা চক্রবর্তী বলেন, আমরা করোনা প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার শুরুতেই সভা সমাবেশের মাধ্যমে, মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে আধুনিক করার প্রস্তাব সহ সতর্ক করার চেষ্টা করেছি তখন আমাদের নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করেছে।

আমরা আমাদের সংগঠনের মাধ্যমে নগরীর বিভিন্নপ্রান্তে ঘুরে ঘুরে ১০ হাজার হ্যান্ডওয়াস তৈরী করে বিতরন করেছি এবং সেই সাথে এক মুঠো চালের কর্মসূচির মাধ্যমে দুস্থ আসহায় মানুষের মাঝে সেবা প্রদান করা হয়েছে।

অন্যদিকে বাসদ বরিশাল জেলা কমিটি দুস্থ ও অসহায়দের জন্য মানবতার বাজারের মাধ্যমে বিনামূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য সরবরাহ করে যাচ্ছি।

এই করোনা পরিস্থিতির সংকটময়কালে সাধারন অসহায় মানুষের জন্য রেশনিং পদ্ধতি চালু করার পাশাপাশি চিকিৎসকদের সুরক্ষার মাধ্যমে রোগীদের সেবা দিতে তার ব্যবস্থা করার আহবান জানান।

বরিশাল নিউজ/স্টাফ রিপোর্টার