ঢাকা সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ১ ফেব্রুয়ারি

বরিশাল নিউজ।। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ৩০ জানুয়ারির পরিবর্তে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি পুনর্নির্ধারণ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সরস্বতী পূজার জন্য দুই সিটির ভোটের তারিখ বদলের দাবিতে ব্যাপক সমর্থনের প্রেক্ষাপটে জরুরি বৈঠকে কমিশন শনিবার রাতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর আগে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে বিকাল সোয়া ৪টা থেকে রাত পর্যন্ত দুই দফা নির্বাচন ভবনে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন ইসির কমিশনাররা। বৈঠক শেষে রাত সাড়ে ৮টায় সিইসি জানিয়েছেন, সবদিক বিবেচনা করে ভোট ৩০ জানুয়ারির পরিবর্তে ১ ফেব্রুয়ারি করা হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি, পরীক্ষার তারিখ পেছালে সমস্যা হবে কি না। তারা পরীক্ষা পেছাতে সম্মত হওয়ায় ভোট পেছানো হয়েছে। ভোটের কারণে পূর্বনির্ধারিত এসএসসি পরীক্ষা ১ ফেব্রুয়ারির পরিবর্তে ৩ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, হিন্দু সম্প্রদায়ের সরস্বতী পূজা ৩০ জানুয়ারি। ঐ দিন ভোটের তারিখ পড়ায় প্রতিবাদে সোচ্চার হয়ে উঠে বিভিন্ন সংগঠনসহ হিন্দু ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা। ভোট পেছানোর দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান, মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল এবং অনশনসহ আদালতে রিটও হয়। পুজার দিন ভোটের তারিখ নির্ধারণ করায় ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে কমিশন।
সিইসি কে এম নূরুল হুদা বলেন, ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ২৯ তারিখ পূজার ঐচ্ছিক ছুটি ছিল। সেখানে ৩০ তারিখ পূজার দিন নেই, সে প্রেক্ষাপটে আমরা ভোটের দিন ৩০ জানুয়ারি নির্ধারণ করেছিলাম। সেটা মাথায় রেখে যাতে কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত না আসে সেটি নিয়ে মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনিও ১ ফেব্রুয়ারির পরীক্ষা পিছিয়ে নিতে সম্মত হয়েছেন।
প্রসঙ্গত, গত ২২ ডিসেম্বর ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের তপশিল ঘোষণার পর থেকেই ভোটের তারিখ পেছানোর দাবিতে পূজা উদ্যাপন পরিষদ, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ, হিন্দু পরিষদ ও ডাকসু নেতৃবৃন্দ এবং জগন্নাথ হলের শিক্ষার্থীরা ইসিতে এসে স্মারকলিপি প্রদান ও বৈঠক করেন। তারা দুই সিটির রিটার্নিং অফিসারকেও চিঠি দেন। বিক্ষোভ-মানববন্ধন অব্যাহত রাখে হিন্দু সম্প্রদায়ের বিভিন্ন সংগঠন।

 গত ১০ জানুয়ারি ডিএসসি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন দক্ষিণ সিটির এলাকায় সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের পূজা উপলক্ষ্যে ব্যাপক জনসমাগম হওয়ায় ভোট পেছানোর সুপারিশ জানিয়ে চিঠি দিয়েছিলেন ইসিতে। নির্বাচন পেছানোর দাবিতে গত বৃহস্পতিবার থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে আমরণ অনশন শুরু করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এছাড়া ভোটগ্রহণের তারিখ ৩০ জানুয়ারির পরিবর্তন চেয়ে গত বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগে আবেদন করেন আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষ। তবে গত ১৪ জানুয়ারি হাইকোর্ট বেঞ্চ নির্বাচনের তারিখ পেছানোর জন্য করা রিটটি খারিজ করে দেন। এছাড়া রাজনৈতিক দলগুলোও ভোট পেছানোর পক্ষে বক্তব্য দিয়েছে।

ভোট পেছানোর ক্ষেত্রে সরকার বা আওয়ামী লীগের কোনো আপত্তি নেই বলে জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও। বেশির ভাগ মেয়র প্রার্থীও ভোট পেছানোর দাবি জানিয়েছিলেন।
সূত্র:ইত্তেফাক