ডা.মনীষা চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ


বরিশাল  নিউজ।। বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) জেলা শাখার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন মাতৃছায়া শিশুকাননের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক সুজিত কুমার দেবনাথ। বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে ডা.মনীষা চক্রবর্তীর করোনার অস্থায়ী ক্যাম্প সরিয়ে নিতে রবিবার ,২৬ জুলাই বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানায় অভিযোগটি করেন তিনি।

প্রতিষ্ঠান পরিচালকের অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিদ্যালয়টির এক পাশে একটি রুম খালি থাকায় এক শিক্ষকের অনুরোধে ডা. মনীষা চক্রবর্তীকে রুমটি শিশুদের বিজ্ঞান শেখানোর জন্য ‘বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চ’ নামের সংগঠনটিকে মৌখিকভাবে ভাড়া দেন তিনি। পরবর্তীতে চলতি বছরের ১৮ মার্চ ডা. মনীষা চক্রবর্তী বিশ্ব কোভিড-১৯ উপলক্ষে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বিদ্যালয়টির ৪টি কক্ষ ও তার সামনের প্রাঙ্গণ  ব্যবহার করার অনুমতি চাইলে মানবিক দিক বিকেচনা করে মৌখিকভাবে সাময়িক ব্যবহারের অনুমতি দেন তিনি।

এসময় তিনি বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে মানবতার বাজার নামে একটি বাজার খোলেন এবং ত্রাণ বিতরন কার্যক্রম করেন। ঈদুল ফিতরের পর ওই কার্যক্রম না চলায় বিদ্যালয় ত্যাগ করতে বললে মনীষা চক্রবর্তী তার কথায় কর্ণপাত করেন নি। হঠাৎ জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে কয়েকটি অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে আসে এবং করোনা রোগীদের অস্থায়ী ক্যাম্প কার্যক্রম শুরু করেন।

এড়্গেত্রে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কোন অনুমতি রয়েছে কিনা সেটা তার (প্রতিষ্ঠান পরিচালকের) জানা নেই। কিন্তু এ কার্যক্রম চালাতে সে বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ব্যবহারের কোন অনুমতি দেননি বলে অভিযোগে উলেস্নখ করেন। অভিযোগে আরও উলেস্নখ করেন, করোনা রোগী বয়ে আনা এ্যাম্বুলেন্স, ব্যবহৃত পিপিই, মাস্ক, পোষাক পরিচ্ছদ, অক্সিজেন সিলিন্ডার ইত্যদি স্কুলের যেখানে সেখানে ফেলে রাখা এবং করোনায় ব্যবহৃত প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ধোয়াসহ স্কুলের শিক্ষার্থীদের টয়লেট ব্যবহার করেন তারা।

মনীষা চক্রবর্তীকে এইসব কর্মকান্ড থেকে বার বার বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করা হলেও তিনি তার কথায় কোন কর্ণপাত করেননি। এসময় তিনি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এ ধরণের কাজ না করার জন্য অনুরোধ করেন এবং শ্রেণিকক্ষসহ বাচ্চাদের খেলার মাঠ ছেড়ে দিয়ে মৌখিক ভাড়াকৃত রুমে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়। কিন্তু সে কোন কথা না শুনে অবৈধ ভাবে নিজের ইচ্ছেমত ব্যবহার করে যাচ্ছে। উল্টো মনীষা চক্রবর্তী) তার সাথে অসদাচরণ করেন এবং গণমাধ্যমের ভয় দেখান। সুজিত কুমার দেবনাথ অভিযোগে আরও উলেস্নখ করেন- মনীষা চক্রবর্তী তাদের নিজস্ব ব্যবহৃত পরিবহণ (ব্যাটারী চালিত চার্জার) সরকারী বিদ্যুৎ লাইন থেকে অবৈধভাবে সংযোগ দিয়ে চার্জ দেয়। এ কারনে বিদ্যুৎ অফিস থেকে ৩ বার সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছিলো। এমন কাজে আমি নিজেও নিষেধ করি। কিন্তু তা তিনি আমলে নেয়নি। বিদ্যালয় প্রাঙ্গনটি রাজনৈতিক বিভিন্ন মিছিল, মির্টিং এর কাজে ব্যবহার করে এবং সবসময় জমায়েত হয়ে থাকে বলেও অভিযোগে উলেস্নখ করা হয়। জনসেবার নামে মনীষা চক্রবর্তীর এই কর্মকান্ড জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করবে বলেও অভিযোগে উলেস্নখ করা হয়। তিনি মনীষা চক্রবর্তীর এই কর্মকান্ড থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

বরিশাল  নিউজ/ স্টাফ রিপোর্টার