শুধু এডিস মশাই দায়ী নয়

বরিশাল নিউজ।। ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে এখন দেশজুড়ে দু:শ্চিন্তা। মেয়রদের অধিকাংশ সময় কাটে মশা মারার কর্মসূচিতে। ডেঙ্গু প্রতিরোধে যে লিফলেটগুলো দেওয়া হচ্ছে, তাতে শুধু মশা মারা আর পরিচ্ছন্নতার পরামর্শ দেওয়া। একজন সুস্থ্য স্বাভাবিক মানুষও যে সাধারণভাবে প্রতিরোধ করতে পারেন ডেঙ্গু তা বলা হয় না কোনো খানেই। এদিকে এসব না জেনে সাধারণ মানুষও ডেঙ্গুর জন্য দোষ চাপান মেয়রদের ঘাড়ে।

চলুন জেনে নেই ডেঙ্গুর মূল কারণ ও এর সহজ প্রতিকার:

ডেঙ্গু হলে রক্তে কমে যায় প্লাটিলেটের পরিমান। আর একারণেই দূর্বল হয়ে পড়ে আক্রান্ত ব্যক্তি। সাধারণভাবে রক্তে প্লাটিলেট কমায় ডেঙ্গুকে দায়ী করা হয়। তবে এই ধারণাটি আংশিক সত্য। অর্থাৎ রক্তে প্লাটিলেট কমার অনেকগুলো কারনের মধ্যে একটি হচ্ছে ডেঙ্গু।

রক্তের প্লাটিলেট কী? মানবদেহে এর কাজ কী?

প্লাটিলেট হলো রক্তের এক ধরণের ক্ষুদ্র কনিকা, যা রক্ত জমাট বাধঁতে ও রক্তক্ষরণ বন্ধ করতে সাহায্য করে। প্লাটিলেট কোষ রক্তে অনেকটা প্লেটের মতো থাকে। একজন সুস্থ্য স্বাভাবিক মানুষের রক্তে সাধারনত দেড় লাখ থেকে সাড়ে চার লাখ পর্যন্ত প্লাটিলেট থাকে। রক্তে প্লাটিলেটের পরিমান কমে যাওয়াকে Thrombocytopenia বলে।

যেসব কারনে রক্তে প্লাটিলেট কমে যায়
*অ্যানিমিয়া,
*ডেঙ্গু,
*ভাইরাস সংক্রমন,
*লিউকেমিয়া
*মদ্যপান
*কেমোথেরাপি।
*ভিটামিন বি-১২ এর অভাব কিংবা অন্য জটিল রোগের কারণে প্লাটিলেটের পরিমান কমে যেতে পারে।
প্লাটিলেটের সংখ্যা সামান্য কমে গেলে তা খাবার এবং বিশ্রামের মাধ্যমেই আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেওয়া সম্ভব। তবে যদি মাড়ি দিয়ে রক্ত পড়া, ক্ষতস্থান না শুকানো এবং সেখান থেকে রক্তক্ষরণ, র‌্যাশ, পায়খানা কিংবা প্রসাবের সঙ্গে রক্ত যাওয়া ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দিলে অবশ্যই চিকিৎসকের সরণাপন্ন হওয়া উচিত।

প্লাটিলেট বৃদ্ধিকারী ৭ খাবার

মিষ্টি কুমড়া এবং কুমড়ার বীজ

মিষ্টি কুমড়া রক্তের প্লাটিলেট তৈরি করতে বেশ কার্যকরী। এছাড়াও মিষ্টি কুমড়াতে আছে ভিটামিন এ, যা প্লাটিলেট তৈরি করতে সহায়তা করে।

পেঁপে এবং পেঁপে পাতা

গবেষণায় দেখা গেছে যে, ডেঙ্গু জ্বরের কারনে রক্তে প্লাটিলেটের পরিমান কমে গেলে পেঁপে পাতার রস তা দ্রুত বৃদ্ধি করে। তাই প্লাটিলেটের পরিমান কমে গেলে প্রতিদিন পেঁপেপাতার রস কিংবা পাকা পেঁপের জুস পান করুন।

লেবু এবং আমলকী

লেবু এবং আমলকীর রসে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি থাকে। ভিটামিন সি রক্তে প্লাটিলেট বাড়াতে সহায়তা করে।

বিট

রক্তে প্লাটিলেটের পরিমান কমে গেলে প্রতিদিন এক গ্লাস বিটের রস পান করুন। বিটের পুষ্টি উপাদান প্লাটিলেটকে নষ্ট হওয়া থেকে রক্ষা করে এবং প্রচুর নতুন প্লাটিলেট তৈরি করে।

অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরা রক্তকে বিশুদ্ধ করে। রক্তের যেকোনো সংক্রমণ দূর করতেও অ্যালোভেরা উপকারী । তাই নিয়মিত অ্যালোভেরার জুস পান করুন। এই জুস পান করলে রক্তের প্লাটিলেটের পরিমান বৃদ্ধি পায়।

ডালিম

ডালিম রক্তের প্লাটিলেটের পরিমান বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এতে প্রচুর পরিমান আয়রন রয়েছে। যা প্লাটিলেট বৃদ্ধি করে।

দুধ

দুধের ক্যালসিয়াম রক্তে প্লাটিলেট গঠনে সাহায্য করে। ক্যালসিয়ামের অভাব হলে রক্তে প্লাটিলেট তৈরির গতি ধীর হয়ে যায়। দুধের পাশাপাশি টক দুই, চীজ, দুধের তৈরি খাবার খাওয়া উচিত।

কলিজা

কলিজা রক্তের প্লাটিলেটের পরিমান বৃদ্ধি করে। যেকোনো মাংসের কলিজা ভালোভাবে রান্না করে খান।

সৌজন্যে: অনুভুতির গল্প