ইমামরা আমাদের ধর্মীয় নেতা-মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ

বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ বলেছেন,“ইমামরা আমাদের ধর্মীয় নেতা , তাদের পেছনে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করি। তাদের নিয়ে আমি বরিশাল শহরের সব অপকর্ম উৎখাত করেছি। আমি চেষ্টা করেছি বরিশালের মানুষকে শান্তিতে রাখতে। অনেকেই অনেক কিছু আমার বিরুদ্ধে বলেন কিন্তু কখনও প্রতিহিংসা করিনি।”

নগরীর বান্দরোডের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দান সংলগ্ন ৫তলা মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহান আরা বেগম ইমাম ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ।  বরিশাল ক্লাবে সোমবার ,১০ মে  আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ৩০ ওয়ার্ডের ইমাম ও মোয়াজ্জিনগণ উপস্থিতি ছিলেন।

তিনি এ সময় আরও বলেন, বরিশালে চরমোনাই এতো বড় একটি শক্তি, ছারছিনা একটা বড় শক্তি। আবার অনেকে বরিশালকে বিএনপির ঘাটিও বলে থাকেন। কিন্তু সেখানে আমরা সর্বোচ্চ সুরক্ষিত আছি। মতভেদ থাকলেও বরিশালে আমরা শান্তিতে আছি।

তিনি আরও বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে স্বাধীনতার ৫০ বছরে এসে হামলা হচ্ছে। সেখানে বরিশাল শহরে আমরা সর্বোচ্চ বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল করেছি, মানবলোগো করেছি। এটা সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টাতেই সম্ভব হয়েছে।

মেয়র বলেন, আজ আমার আহ্বানে আপনারা আগের মতো চলে এসেছেন, এটাই আমার শক্তি। আমি প্রশাসনের শক্তি নিয়ে চলি না, জনগণেই আমার শক্তি। আমার দাদা কৃষকনেতা ছিলেন। আমার বাবা দেশ নেত্রীর সঙ্গে সারাটা জীবন কাটিয়ে দিচ্ছেন। ১৫ আগস্টে ৪ বছরের ভাই সুকান্ত বাবু নিহত হয়েছেন। ১৫ আগস্টের শহীদদের ছবিতে আমার ছবিও থাকার কথা ছিলো। তখন দেড় বছরের শিশু হওয়ায় মা আমাকে লুকিয়ে রেখে ছিলেন। কিন্তু মায়ের শরীরে ঠিকই ৫ টা গুলি লেগেছে।

বরিশাল সিটি মেয়র বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে শপথ বাক্য পাঠ করিয়েছেন। আর আমি যে শপথ পাঠ করেছি, তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করছি।

তিনি বলেন, সাড়ে ৩শ’ কোটি টাকার দেনা নিয়ে আমি মেয়রের চেয়ারে বসেছি। ৮ মাসের বেতন বকেয়া ছিলো সিটি করপোরেশনের স্টাফদের। তারপরও আমি কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আপনারা আমাকে নির্বাচিত করেছেন। আমার সমালোচনা করবেন, আমাকে গালি দেবেন এটা আমাকে মেনে নিতে হবে। আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন তা আমি নিঁখুতভাবে পালন করবো, একটা পয়সা এদিক-সেদিক হতে দেবো না। দোয়া করবেন যেন বরিশালের মানুষের চাহিদা পূরণ করতে পারি।

এসময় তিনি নগরীর ইমামদের জন্য মাসিক ৬০০ টাকা, মোয়াজ্জিনদের জন্য ৪০০ টাকা ভাতা চালুর কথা জানিয়ে জনতা ব্যাংকে সবাইকে অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য বলেন। ভাতার টাকা অ্যাকাউন্টে চলে যাবে বলে জানান মেয়র। তিনি যতদিন আছেন ততদিন এ ভাতা দিয়ে যাবেন বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বরিশালের জেলা প্রশাসক মো. জসীম উদ্দীন হায়দার, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান ,  বরিশাল সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মো. ফারুক, বরিশাল মহানগর ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা কাজী আবদুল মান্নান।

বরিশাল নিউজ/ স্টাফ রিপোর্টার