বালু নিতে হলে চাঁদা দিতে হবে

মেঘনা নদীর চাঁদপুরের হরিণা ফেরিঘাট ও আলু বাজার পয়েন্টে বালুবাহী বাল্কহেড থেকে চাঁদাবাজির প্রতিবাদে রবিবার ৮ নভেম্বর বরিশালে মানববন্ধন করেছেন বাল্কহেড মালিক ও শ্রমিকরা। 

বরিশাল নগরীর চাঁদমারী সংলগ্ন কীর্তনখোলা নদীর তীরে এই মানববন্ধন করেন তারা।

মানববন্ধন শেষে একই দাবিতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেন মালিক-শ্রমিক নেতারা। স্মারকলিপিতে তারা অভিযুক্ত চাঁদাবাজদের কঠোর বিচার দাবি করেন। 

বাল্কহেড শ্রমিকদের স্মারকলিপি যথাযথ প্রক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানোসহ চাঁদপুর প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে এ বিষয়ে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেন বরিশালের জেলা প্রশাসক এস এম অজিয়র রহমান।

মানববন্ধনে বক্তারা জানান, রাজবাড়ী জেলার পাকশি ও কুষ্টিয়া থেকে নৌপথে ইমারত নির্মাণের বালু বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলে আনা হয়। বরিশাল অঞ্চলের অন্তত ৫০০ বাল্ডহেড এই বালু পরিবহন করে। পথে চাঁদপুরের হরিণা ফেরিঘাট ও আলু বাজার সংলগ্ন মেঘনা নদীতে প্রতিটি বাল্কহেডে হানা দিয়ে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা চাঁদা নেয় স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। 

দাবিকৃত চাঁদা না দিলে বাল্কহেড শ্রমিকদের মারধর করে সঙ্গে টাকা মোবাইল ফোন ও টাকাসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে নেয়। অনেক সময় বাল্কহেড আটকে রেখে নদীতে বালু ফেলে দেয়। কখনো বাল্কহেড ডুবিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় তারা। 

চাঁদপুরের ১০ নম্বর লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের এক জনপ্রতিনিধি মেঘনা নদীতে বালুবাহী বাল্কহেড থেকে চাঁদাবাজীর নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের। তাদের আরও অভিযোগ গত বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর সকালে চাঁদা না দেওয়ায় বরিশালগামী বালুবাহী দুইটি বাল্কহেডের ১০ জন শ্রমিককে মারধর করে বাল্কহেড আটকে রাখে সন্ত্রাসীরা।

বরিশাল নিউজ/ স্টাফ রিপোর্টার