গৌরনদীতে ‘ননি’ ফল

একটি ছোট ফল । ১০০ থেকে দেড়শ’ গ্রাম ওজন । কিন্তু ঔষুধি গুণের জুড়ি নেই তার । ক্যান্সারসহ জটিল রোগের নিরাময় হয় এই ফলের রসে  । তবে ব্যাথানাশক হিসাবেই ব্যবহার হয় বেশি ।

ফলটির  নাম ননি । হারবাল ঔষুধ তৈরীতে এই ফল ব্যবহার করা হয় । ফলটি আমদানি করতে হয় বলে দাম অনেক বেশি । প্রতি কেজি ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা জানালেন এর ক্রেতা।

বরিশালের গৌরনদীতে ব্যাথানাশক এই ননী ফল চাষ করে সাড়া ফেলেছেন হাবিব সরদার। তার ফলের ব্যাপক চাহিদা সৃষ্টি হওয়ায় বানিজ্যিকভাবে ফল এবং চারা বিক্রি করছেন এখন।

হাবিব এক দুর্ঘটনায় পায়ে আঘাত পেয়েছিলেন। বহু চিকিৎসা করেও কোন ফল পাননি। শেষে দ্বারস্থ হন এক কবিরাজের । উত্তরবঙ্গের সেই কবিরাজের কাছ থেকে ননী ফলের ঔষুধী গুণ জেনে মালয়েশিয়া থেকে বন্ধুর মাধ্যমে একটি ফল সংগ্রহ করেন। ফলের জুস পান করে উপকার পেয়ে ব্যবসা করার পরিকল্পনা করেন তিনি।

হাবিব সরদার জানান, ফলের বিচি থেকে প্রথমে তিনি চারা করেছেন । ৪৩টি বীজ থেকে ১২ টি চারা বেচে ছিলো । তারমধ্যে থেকে ৭টি গাছ ফল দিচ্ছে। তিনি এই ফলের কেজি বিক্রি করছেন ১২ হাজার টাকা করে।  

তিনি আরও বলেন, বাড়ীতেই বসেই এত দামি ফল নিমিষেই বিক্রি হয়ে যায় । গ্রামের লোকেরা তার বাড়ীতে এসে ফল নিয়ে যাচ্ছেন । কুরিয়ারেও পাঠান দেশের বিভিন্ন স্থানে । ফল বিক্রির পাশাপাশি বড় নার্সারী গড়ে তুলেছেন তিনি । তাকে সহায়তা করেন তার স্ত্রী । আর প্রতিটি চারা বিক্রি করেন দুই হাজার টাকায়।

বরিশাল কৃষি বিভাগ বরিশালে এমন ফল চাষের কথা আগে শোনেনি। এখন এমন ঔষুধি গুনসম্পন্ন এবং লাভজনক ফল চাষ করার ব্যাপারে উদ্যোগ নেবেন বলে জানান বরিশাল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো.তৌফিকুল আলম ।

ফলটিতে আছে ভিটামিন এ, সি, ই, বি, বি-২, বি-৬, বি-১২, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ফলিক এসিড, প্যান্টোথেনিক এসিড, ফসফরাস, ম্যাগনেশিয়াম, জিংক, কপার, অন্যান্য মিনারেলসহ প্রায় ১৫০টির মতো পুষ্টিগুণ। ননি ফলের রসে উচ্চ রক্তচাপ কমে, শারীরিক শক্তি বাড়ে, প্রতিরোধ করে প্রদাহ ও হিস্টামিন। ননি ফল খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আসে।

বরিশাল নিউজ/স্টাফ রিপোর্টার