অভয়াশ্রমে ২ মাস ইলিশসহ মাছ ধরা বন্ধ হলো


বরিশাল নিউজ।।   ইলিশের ৫টি অভয়াশ্রমে সব ধরনের মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে মৎস্য অধিদপ্তর।
১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এই দুই মাস থাকবে নিষেধাজ্ঞ।
জাটকা (৯ ইঞ্চির কম সাইজ) পূর্ণাঙ্গ ইলিশে পরিণত হওয়া নিশ্চিত করতে মৎস্য অধিদপ্তর প্রতি বছর দুই মাস নির্দিষ্ট ৬টি অভয়াশ্রমে সব ধরনের মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করে।
৬টি অভয়াশ্রমের মধ্যে গত ১ নভেম্বর থেকে ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত আন্ধারমানিক নদের ৪০ কিলোমিটারে ২ মাসের নিষেধাজ্ঞা পালিত হয়েছে। অপর ৫টি অভয়াশ্রমে ০১ মার্চ থেকে দুই মাসের নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়।

যারমধ্যে বরিশালের হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা সংলগ্ন মেঘনার শাখা-প্রশাখা নিয়ে গঠিত ষষ্ঠ অভায়াশ্রমে গত বছর থেকে দুই মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হচ্ছে। নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা এ অভয়াশ্রম বরিশাল সদর উপজেলার কালাবদর নদীর হবিনগর পয়েন্ট থেকে মেহেন্দিগঞ্জের বামনীরচর পয়েন্ট পর্যন্ত ১৩ দশমিক ১৪ কিলোমিটার, মেহেন্দিগঞ্জের গজারিয়া নদীর হাটপয়েন্ট থেকে হিজলা লঞ্চঘাট পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার, হিজলার মেঘনার মৌলভীরহাট পয়েন্ট থেকে মেহেন্দিগঞ্জ সংলগ্ল মেঘনার দক্ষিণ-পশ্চিম জাঙ্গালিয়া পয়েন্ট পর্যন্ত ২৬ কিলোমিটার।

এছাড়া চলতি নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা অপর ৪টি অভয়াশ্রম হলো- চর ইলিশার মদনপুর থেকে ভোলার চরপিয়াল পর্যন্ত মেঘনা নদীর শাহাবাজপুর চ্যানেলের ৯০ কিলোমিটার, ভোলার ভেদুরিয়া থেকে পটুয়াখালী জেলার চর রুস্তুম পর্যন্ত তেতুলিয়া নদীর ১০০ কিলোমিটার, চাঁদপুরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুর জেলার চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত মেঘনা নদীর ১০০ কিলোমিটার এবং শরীয়তপুরের নরিয়া থেকে ভেদরগঞ্জ পর্যন্ত নিম্ন পদ্মার ২০ কিলোমিটার নদ-নদী।

মৎস্য অধিদপ্তর বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আজিজুল হক বলেন, নিষেধাজ্ঞার মধ্যে অন্য মাছ আহরণের অজুহাতে জেলেরা নদীতে নেমে যেন জাটকা নিধন করার সুযোগ না পায়, সেজন্য অভয়াশ্রম জলসীমার মধ্যে সব ধরনের মাছ আহরণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

তিনি জানান, নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করতে আগে থেকেই জেলে পাড়াগুলোতে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানো হয়েছে। এখন প্রতিরোধে চালানো হচ্ছে অভিযান। আর প্রণোদনা হিসাবে তালিকাভূক্ত জেলে পরিবারগুলোকে এই সময়ে ৪০ কেজি করে চাল সহায়তা দেওয়া হবে।
বরিশাল নিউজ/স্টাফ রিপোর্টার