৪ শতাংশ দলিতের দাবি বাজেটের ১ শতাংশ

বরিশাল নিউজ।। দলিত জনগোষ্ঠীর জন্য ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ন্যূনতম ১% বরাদ্দ রাখা উচিত বলে মনে করেন ওই জনগোষ্ঠীর তরুনরা। বরিশালে অনুষ্ঠিত ‘‘সরকারি সেবাসগুলো হরিজন, রবিদাস ও দলিত যুবদের জন্য কতটুকু অন্তর্ভুকিমূলক’’ শীর্ষক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় এমন মত দিয়েছেন তারা। নগরীর কীর্তনখোলা মিলনায়তনে ছায়া সংসদ কাঠামোয় ওই প্রতিযোগিতা হয়। বেসরকারি সংস্থা অ্যাকশন এইডের সহযোগিতায় রীচ টু আনরীচডের (রান) যুব নেতৃত্ব বিকাশের মাধ্যমে উন্নয়ন অগ্রযাত্রার স্রোতধারায় সম্পৃক্তকরণ প্রকল্পের আওতায় এ প্রতিযোগিতা হয়।

সরকারি সেবায় দলিত জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্তি নিয়ে বরিশালে অনুষ্ঠিত বির্তক-বরিশাল নিউজ
সরকারি সেবায় দলিত জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্তি নিয়ে বরিশালে অনুষ্ঠিত বির্তক-বরিশাল নিউজ

ছায়া সংসদে স্পীকারের ভূমিকা পালন করেন বরিশাল ডিবেট এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি ইমরান শিরাজ। এসময় হরিজন, রবিদাস ও দলিত যুবরা সরকারি ট্রেজারী বেঞ্চ হিসাবে বৃষ্টি রানী দাস তার দল এবং বিরোধী দলীয় নেতা হিসাবে বিউটি ও তার দল জাতীয় বাজেটে যুবদের শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ, আবাসন, পানি, স্যানিটেশন ও নিরাপত্তা সংকট সমাধানে বিভিন্ন প্রস্তাবনা উত্থাপন ও উদ্যোগসমূহ নিয়ে বিভিন্ন যুক্তি-তর্ক তুলে ধরে সমাধানের প্রস্তাবনা রাখেন।
ছায়া সংসদে বিতার্কিকদের বক্তব্যে উঠে আসে, দেশের মোট জনসংখ্যার চার শতাংশ হরিজন, রবিদাস তথা অনগ্রসর দলিত জনগোষ্ঠী। কিন্তু জাতীয় বাজেট ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে ছিল ১০ কোটি এবং ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে তাদের জন্য বরাদ্দ ৫০ কোটি টাকা্। এর ফলে এই জনগোষ্ঠীর শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবাসন, কর্মসংস্থান, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচী ও বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ যথেষ্ট নয়। একারনে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ন্যূনতম ১% বরাদ্দ রাখার জন্য সুপারিশ করা হয়।


এছাড়াও বরিশাল নগরীর কাউনিয়া হরিজন কলোনীর নির্মিয়মান অসমাপ্ত ভবনটি সম্পন্ন করে তাদের হস্তান্তর করাসহ অন্যান কলোনীতে আবাসন ভবন নির্মান, রবিদাস কলোনী ও ভক্ত কলোনীতে নিরাপদ পানির সংকট দূর করা, এই জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের শিক্ষার মূলস্রোত ধারা সম্পক্ত করতে এই সুযোগের আওতা বাড়ানো, এই সমপ্রদায়ের যুবদের বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য দক্ষতা উন্নয়নের প্রশিক্ষণের সুযোগ সংখ্যা বৃদ্ধিকরণ।
বিতর্ক প্রতিযোগিতা শেষে পুরস্কার বিতরণী সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বরিশাল জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রবেশন কর্মকর্তা সাজ্জাদ পারভেজ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রান নির্বাহী পরিচালক মো. রফিকুল আলম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সনাকের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক গাজী জাহিদ হোসেন, মানবাধিকার জোটের সভাপতি ডা. সৈয়দ হাবিবুর রহমান , মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক পুষ্প রানী চক্রবর্তী , জেলা গণফোরাম সভাপতি এ্যাড. হিরন কুমার দাস মিঠু, জেলা জাসদ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. আবদুল হাই মাহাবুব , বিডিইআরএম-এর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার ভক্ত ,হরিজন ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত কুমার দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক রাজকুমার দাসসহ অন্যরা।
আলোচনা শেষে বিতর্ক প্রতিযোগিতা অংশগ্রহণকারী সরকারি ও বেসরকারি বেঞ্চের সকলকে শুভেচ্ছা স্মারক দেওয়া হয়।
বরিশাল নিউজ/শাওন