বরিশালে ইন্টার্ণ চিকিৎসকদের করোনা টেস্ট দাবি

বরিশাল নিউজ।। নিজেদের করোনা টেষ্টের দাবি জানিয়েছেন শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়-শেবাচিম হাসপাতালে কর্মরত ইন্টার্ণ চিকিৎসকরা। রোগীদের করোনা উপসর্গ গোপন করার প্রবনতা ও তিন চিকিৎসকের করোনাক্রান্ত হওয়ার প্রেক্ষিতে তারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন।

শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন বরিশাল নিউজকে বলেন, করোনা উপসর্গ গোপন করে রোগীরা সাধারন ওয়ার্ডে ভর্তি হচ্ছেন। গত কয়েকদিনে এরকম অন্তত তিনটি ঘটনায় সাধারন ওয়ার্ডে ভর্তির পর রোগীর করোনা উপসর্গ নজরে এসেছে এবং তাদের করোনা ইউনিটে নেওয়া হয়। পরবর্তীতে যাদের মধ্যে দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। এক্ষেত্রে স্বভাবতই ডাক্তার-নার্সসহ চিকিৎসাকর্মীদের সংক্রমনের ভয় থেকে যায়।

সম্প্রতি পরীক্ষার মাধ্যমে দেখা গেছে শেবাচিম হাসপাতালের তিন চিকিৎসক করোনা পজিটিভ। শনিবার তাদের করোনা শনাক্তের পর ইন্টার্ণ চিকিৎসকদের করোনা পরীক্ষার দাবি আরো জোরালো হলো।

সবশেষ রবিবার শেবাচিম হাসপাতালের করোনা ইউনিটে এমন একজন রোগী মারা যান, যিনি তার করোনা উপসর্গ গোপন করেছিলেন। ওই ব্যক্তি বেশ কয়েক ঘন্টা সাধারন ওয়ার্ডে অবস্থানও করেছিলেন।

আরো পড়ুন: বরিশালে ইন্টার্ন ডাক্তারসহ পজেটিভ ২

বরিশাল নিউজের সাথে শেবাচিম হাসপাতালে কর্মরত একজন ইন্টার্ণ চিকিৎসক রবিবার যোগাযোগ করে এ ব্যাপারে উদ্বেগের কথা জানান।

নাম-পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে ওই চিকিৎসক বলেন, ‘‘রোগীরা করোনা উপসর্গ গোপন করায় আমরা আশঙ্কা করছি চিকিৎসা দিতে গিয়ে আমাদের মধ্যে যে কেউ করোনা আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন। তাই আমরা করোনা পজিটিভ কিনা সেটা পরীক্ষা করা জরুরি। দ্রুত এটা না করা হলে আমাদের সহকর্মীরা তো বটেই, সাধারণ রোগীরাও সংক্রমিত হতে পারেন।’’

‘‘তাই হাসপাতালে অবস্থানরত সবার কথা চিন্তা করেই যত দ্রুত সম্ভব আমাদের করোনা টেষ্ট জরুরী। না হলে বড় বিপদ ঘটতে পারে।’’যোগ করেন ওই চিকিৎসক।

বরিশাল নিউজ/স্টাফ রিপোর্টার