হত্যা মামলার আসামীর মরদেহ ধানক্ষেতে; কিশোর আটক

মরদেহ উদ্ধার-প্রতীকী ছবি

বরিশাল নিউজ।। পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলায় স্কুল ছাত্র সালাউদ্দিন হত্যা মামলার নয় নম্বর আসামী সাগর মুন্সির (২১) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিখোঁজের দুই দিন পর রবিবার উপজেলার পাড়েরহাট ইউনিয়নের দড়িচর ইকরবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ধানক্ষেত থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আজাদ মোল্লা (১৪) নামে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত সাগর মুন্সি মোড়েলগঞ্জ উপজেলার তেতুলবাড়িয়া ইউনিয়নের সুতালড়ি গ্রামের আমজাদ মুন্সির ছেলে।

নিহত সাগরের শাশুড়ি ফাহিমা বেগম জানান, গত শুক্রবার বিকালে সাগর দড়িচর ইকর বুনিয়া গ্রামের একটি দোকানে কলা বিক্রি করতে যান। সেখান থেকে বাড়ৈখালী বাজারের দিকে যাওয়ার সময় সাগরের খালাতো ভাই দড়িচর ইকরবুনিয়া গ্রামের স্বপন সিকদারের ছেলে লাভলু সিকদার তার ওপর হামলা চালিয়ে তাদের বাড়িতে নিয়ে যায়। এরপর থেকে সাগর নিখোঁজ ছিল। এ ঘটনায় তিনি গতকাল শনিবার বিকেলে ইন্দুরকানী থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন।

তিনি আরও জানান, ৭ থেকে ৮ মাস আগে সাগর ও লাভলু ঢাকায় একটি কোম্পানিতে সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করত। সে সময় লাভলু ওই প্রতিষ্ঠান থেকে একটি গ্যাসের সিলিন্ডার চুরি করে বাড়িতে চলে আসে। পরে সাগরের কাছে কর্তৃপক্ষ সিলিন্ডারের কথা জানতে চাইলে সে সিলিন্ডারটি লাভলু চুরি করেছে বলে জানায়। লাভলু এ খবর জেনে সাগরের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়ে।

ইন্দুরকানী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান জানান, জিডির সূত্র ধরে রবিবার পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে পাড়েরহাটের পূর্ব বাড়ৈখালী গ্রামের আজাদ মোল্লাকে আটক করে। তার দেয়া তথ্যমতে লাভলুদের বাড়ির পেছনের ধানক্ষেতের মধ্যে তিন ফুট গভীর একটি গর্তে মাটিচাপা দেয়া অবস্থায় সাগরের মরদেহ পাওয়া যায়।

ওসি বলেন, সাগরকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আজাদ। সাগরের মরদেহ উদ্ধার করে পিরোজপুর মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

নিহত সাগর ইন্দুরকানীর পাড়েরহাটের উমেদপুর গ্রামের স্কুল ছাত্র সালাউদ্দিন আলোচিত হত্যা মামলার ৯ নাম্বার আসামি। গত সেপ্টেম্বর মাসের ৭ তারিখ জামিনে মুক্তি পান সাগর।

বরিশাল নিউজ/পিরোজপুর/স্টাফ রিপোর্টার