শিক্ষক সমিতির সভাপতির হাতে শিক্ষক লাঞ্চিত !

বরিশাল নিউজ।। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষককে গালাগাল এবং আরেক শিক্ষককে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ইব্রাহীম মোল্লার বিরুদ্ধে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ নম্বর প্রশাসনিক ভবনের ৫ম তলায় ৫৫০৬ নম্বর মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে এই হামলার ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এই ঘটনায় ক্ষোভ এবং উত্তেজনা বিরাজ করছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকদের মাঝে। হামলাকারী ইব্রাহীম মোল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের চেয়ারম্যান ।
বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবং ভূ-তত্ত্ব ও খনি বিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান আবু জাফর মিয়া ঘটনাটিকে ন্যাক্কারজনক এবং দুঃখজনক বলেছেন।
ঢাকায় অবস্থানরত বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এসএম ইমামুল হক জানান বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভায় অনাকাংখিত ঘটনার কথা তিনি শুনেছেন। তিনি বলেন,এসব শিক্ষকসুলভ আচরণ নয়। এই ঘটনার নিন্দা জানান উপাচার্য।
শিক্ষক সমিতির সদস্যরা জানান, মঙ্গলবার বিকাল সোয়া ৫টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ নম্বর প্রশাসনিক ভবনের ৫ম তলায় ৫৫০৬ নম্বর কক্ষে সমিতির সভাপতি ইব্রাহীম মোল্লার সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয় সভা শুরু হয়। সভায় নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। এক পর্যায়ে ইব্রাহীম মোল্লার সহধর্মীনি মৃত্তিকা ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ইসরাত সঞ্চারী তার স্বামীকে উদ্দেশ্যে করে পুরনো একটি ঘটনার বিষয়ে তার বিরুদ্ধে গুজব রটানোর বিষয়টি সভায় উত্থাপন করেন। ইব্রাহীম মোল্লা এ সময় উত্তেজিত হয়ে তার বিরুদ্ধে গজব রটানোর জন্য ভূ-তত্ত্ব ও খনি বিদ্যা বিভাগের প্রভাষক ইলিয়াস মাহমুদকে দায়ী করে তাকে গালাগাল করেন। ইলিয়াস মাহমুদ গালাগালের প্রতিবাদ করায় সভায় উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃস্টি হলে তাকে সেখান থেকে সরিয়ে নেন অন্যান্য শিক্ষককরা।
এদিকে অশ্রাব্য ভাষা ব্যবহারের প্রতিবাদ করেন কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক মো. ইরফান। এতে আরও ক্ষুব্ধ হয়ে সভাপতি ইব্রাহীম তুই সন্মোধন করে ‘শিবিরের বাচ্চা’ বলে গালাগাল করেন। ইরফান এর প্রতিবাদ করলে সভাপতি চেয়ার ছেড়ে উঠে গিয়ে ইরফানকে বেশ কয়েকটি কিলঘুষি দেন। এতে সভায় উপস্থিত অন্যান্য শিক্ষকরা হতবিহ্বল হয়ে পড়েন। তারা ইব্রাহীম মোল্লাকে নিবৃত্ত করেন। এ সময় মো. ইরফান অন্যান্যদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা সবাই দেখেছেন আমাকে কিভাবে মারলো এবং এই দৃশ্য সিসি ক্যামেরায়ও রেকর্ড হয়েছে।
এই ব্যাপারে ইব্রাহীম মোল্লা বলেন, একজন শিক্ষক আরেকজন শিক্ষককে কোনভাবেই মারধর করতে পারেন না। তিনিও কাউকে মারধর করেননি। তিনি প্রকাশ্য সভায় শিক্ষক ইলিয়াস মাহমুদকে প্রপাগান্ডা ছড়ানোর বিষয়ে সতর্ক করেছেন। গালাগাল করেননি।
বরিশাল নিউজ/রাহাত