“আসল লোক পায় ২০%”

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে অংশীদারিত্ব ও বাজেট ভাবনা বিষয়ে আলোচনা সভা-বরিশাল নিউজ

বরিশাল নিউজ।। “প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে অংশীদারিত্ব ও বাজেট ভাবনা ” বিষয়ক আলোচনা সভায় ‘বাজেটে দুর্নীতির বিরুদ্ধে বরাদ্দ রাখার আহবান জানান ক্ষুব্ধ আলোচকরা।’ স্পিডট্রাস্ট ও এএলআরডি এর আয়োজনে বুধবার নগরীর বিডিএস কনফারেন্স হলে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
জাতীয় বাজেট প্রণয়ণের সময় দারিদ্র সীমার নিচে অবন্থানরত হত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নের বিষয়টিকে প্রাধান্য দেওয়ার আহবান জানান বক্তারা। আলোচনায় অংশ নেন এইচআরডিসির গবেষক গাজী সারওয়ার্দী,এএরআরডির উপ-নির্বাহী পরিচালক রওশন জাহান মনি, স্পিডট্রাস্টের এএইচএম শামসুল ইসলাম দিপু,বাংলাদেশ দলিত ও বঞ্চিত জনগোষ্ঠীর অধিকার আন্দোলন এর সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার ভক্ত, বাউফলে কৃষানী জাহানারা বেগমসহ আরো অনেকে।
এইচআরডিসির গবেষক গাজী সারওয়ার্দী বলেন, ৯০ দশকে বাজেটে বরাদ্দ নিয়ে আলোচনা হতো না। কিন্তু এখন বাজেটে অর্থায়নের সবচেয়ে বড় কমপোনেন্ট হচ্ছে ভ্যাট। সরকার এক্ষেথ্রে ভ্যাটের মাধ্যমে যে বড় অংশ নিচ্ছে,তার বেশী পরিমানটা দেশের বড় াংশের জন্য ব্যায় করার দাবি জানান তিনি।
এএরআরডির উপ-নির্বাহী পরিচালক রওশন জাহান মনি জানান, বরিশাল,রাজশাহী ও পার্বত্য চট্টগ্রামে এ বছর এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করে আগামী বছরের বাজেটে আলোচনা জন্য প্রস্তুত নিচ্ছেন তারা।
উম্মুক্ত আলোচনায় উঠে আসে নানা পরামর্শ। কেউ বলেছেন,’বাজেট হওয়া দরকার তৃণমূল পর্যায়ে,চাহিদা ভিত্তিক।’ আবার কেউ বলেছেন,”দেশে ৪-১/২% দলিত রয়েছে। বাজেটে ১৫ তাদের জন্য বরাদ্দ রাখতে হবে।”
“নদী ভাঙ্গণের পরপরই মালিককে ক্ষতিপূরণ দিয়ে সরকারকে মালিক হওয়ার” পরামর্শ উঠে এসেছে।
আলোচনা সভায় তৃণমূল থেকে অংশ নেয়া কৃষক-কৃষানীদের অভিযোগ যেন ক্ষোভ পরিনত হয়। তারা বলেন,”সরকার যে প্রণোদনা কিংবা সাহায্য দেয় অথবা ভূমিহীনদের যে জমি দেয়,তার ২০% পায় আসল ক্ষতিগ্রস্থরা। দলীয় নেতা-কর্মীরা পায় ৫০%, মেম্বার চেয়ারম্যানরা পায় ৩০%।”
বরিশাল নিউজ/এমএম হাসান