শহীদ সুকান্ত বাবু সড়ক


শামীম আহমেদ।। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভয়াল কাল রাতে ঘাতকের নির্মম বুলেটে শহীদ সুকান্ত বাবু সেরনিয়াবাতের স্মৃতি রক্ষার্থে গ্রামবাসীর অর্থায়নে নির্মিত হয়েছিল ‘শহীদ সুকান্ত বাবু সড়ক’ (কাঁচা সড়কের)। ভুক্তভোগীরা জরুরি ভিত্তিতে সড়কটি সংস্কারের মাধ্যমে কার্পেটিং করার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তৰেপ কামনা করেছেন।
গৌরনদী উপজেলার বার্থী ইউনিয়নের ‘বঙ্গবন্ধু সড়ক’ এর সংযোগ সড়ক বড়দুলালী গ্রামে এই শহীদ সুকান্ত বাবু সড়ক । স্থানীয়রা জানিয়েছেন, প্রায় ২৫ বছর আগেও বড়দুলালী গ্রামের মানুষের বর্ষা মৌসুমে যাতায়াতের জন্য একমাত্র ভরসা ছিলো নৌকা। একমাত্র যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে গ্রামের ছেলে-মেয়েরা ঠিকমতো স্কুলে যেতে পারতোনা।

১৯৯০ সালে এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ লাঘবে ওই গ্রামের বাসিন্দা সমাজ সেবক নুর ইসলাম খান অসি’র আর্থিক অনুদান ও এলাকাবাসির সর্বাত্মক সহযোগিতায় মাটির রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়।
পরবর্তীতে শহীদ সেরনিয়াবাত সুকান্ত বাবুর স্মৃতি রক্ষার্থে গ্রামবাসীর অর্থায়নে নির্মিত কাঁচা সড়কের নামকরণ করা হয় “শহীদ সুকান্ত বাবু সড়ক”।

১৯৯৬ ও ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর উপজেলা ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কার্যালয়ের অধীনে সড়কটির গুরুত্ব বিবেচনা করে তিনবার মাটির কাজ সম্পন্ন করা হয়। যে কারণে সড়কটি অনেক উঁচু ও প্রশস্ত হয়েছে। ফলে এ সড়ক দিয়ে এলাকাবাসি ভ্যান, অটোরিক্সা, মোটরসাইকেলে যাতায়াত ও গ্রামের উৎপাদিত কৃষিপন্য পরিবহন করে থাকেন। সামান্য বৃষ্টিতেই কাঁদায় একাকার হয়ে জনসাধারণের চলাচলের জন্য পুরো সড়কটি সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পরে। “শহীদ সুকান্ত বাবু সড়ক”টি কার্পেটিংয়ের জন্য দীর্ঘদিন থেকে এলাকাবাসী স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে কর্মকর্তাদের কাছে ধর্ণা দিয়েও কোন সুফল পাননি।
বরিশাল নিউজ/শামীম