মার্চ ৯, ২০১৮

রাস্তা ৮ কি.মি.ভাগ নিয়ে দ্বন্দ্ব ৬ বছর

মাত্র আট কিলোমিটার রাস্তায় গাড়ী চলাচলের ‘ভাগাভাগি’ নিয়ে মালিক সমিতির হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছেন দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীরা। গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকে গত চার মাসে কয়েক দফা ধর্মঘট করেছেন বাস মালিকরা। প্রশাসনের সাথে বৈঠক হয়েছে কয়েকবার। কিন্তু সমাধানের কোন লক্ষণ নেই। উল্টো আগামী ১৪ মার্চ থেকে বরিশাল-কুয়াকাটা, বরিশাল-খুলনা, বরিশাল-বরগুনা, বরিশাল-পিরোজপুর সহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অর্ধ শতাধিক রুটে অর্নিদিষ্টকালের বাস ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছে বরিশাল-পটুয়াখালী-বরগুনা মালিক ও শ্রমিক সমন্বয় পরিষদ ।

বরিশাল-পটুয়াখালী বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাওছার হোসেন শিপন বলেন, ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি নলছিটি সীমান্তে যে রাস্তার দাবি করেছেন,বরিশাল জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক,তৎকালীন মেয়র,পুলিশ কমিশনার,বিআরটিএসহ সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তাদের এক সভায় তার সমাধান হয়ে গেছে ২০১২ সালে।
সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাওছার হোসেন শিপনের অভিযোগ,ঝালকাঠি জেলা বাস মালিক সমিতি তাদের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে নতুন মালিকদের সদস্য করে ২৫ টি গাড়ীর কোটা দেয়। অথচ রুটে ট্রিপ দিতে পারেনি। এই কারণে রাস্তার দাবির নামে কয়েক বছর আগে সমাধান হওয়া বিষয় নিয়ে তারা যাত্রী হয়রানি করছে।
বরিশাল-পটুয়াখালী বাস-মিনিবাস মালিক সমিতি গত বুধবার এক সভায় আগামী ১৩ মার্চের মধ্যে বরিশাল-ঝালকাঠি-খুলনাসহ ছয় রুটে সরাসরি বাস চলাচল এবং বরিশাল-বরগুনা-চান্দুখালী রুটের বাস শ্রমিকদের মারধর, চাঁদাবাজি এবং মহাসড়কে সকল প্রকার অবৈধ যানবাহন চলাচল বন্ধের দাবি জানান।
অন্যথায় তারা ১৪ মার্চ থেকে ধর্মঘটের ঘোষণা দেন। ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন, বরিশাল বিভাগীয় সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আজিজুর রহমান শাহিন, বরিশাল-পটুয়াখালী বাস মিনিবাস মালিক সমিতির উপদেষ্টা আঃ রশিদ খান, বরগুনা বাস মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা কিসলু, পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির সভাপতি রিয়াজ মৃধা সহ অন্যরা।

এদিকে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি তাদের দাবি আদায়ের লক্ষ্যে গত জানুয়ারি মাস থেকে রুপাতলী বাস টার্মিনাল থেকে বাস না ছেড়ে তি কিলোমিটার দূরের রায়পুরা নামক স্থানে বাসস্টান্ড নির্মান করেছে। একারণে যাত্রীদের এখন আলাদা যানবাহনে করে রায়পুরা যেতে হচ্ছে। বরিশালগামী যাত্রীদেরও সেখানে নামতে বাধ্য করা হচ্ছে। এতে যাত্রীদের যেমন অতিরিক্ত সময় ও অর্থ ব্যয় হচ্ছে,তেমনি হয়রানিরও শিকার হতে হচ্ছে তাদের।
এব্যাপারে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির যুগ্ম আহবায়ক ও দাবি আদায় বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক নাসিরউদ্দিন আহমেদ বলেন,বরিশাল-পটুযাখালী-কুয়াকাটা মহা সড়কে ঝালকাঠি জেলার আট কিলোমিটার রাস্তা রয়েছে। যা ব্যবহার করে বরিশাল-পটুযাখালী-বরগুনা বাস মালিক সমিতি বাস চালায়। কিন্তু ঝালকাঠিকে বাস চালাতে দিচ্ছেনা। তাই তারা তাদের সীমানায় বাসস্ট্যান্ড নির্মান করে বাস চলাচল নিয়ন্ত্রণ করছে।
বরিশাল নিউজ/এমএম হাসান

Subscribe to the newsletter

Fames amet, amet elit nulla tellus, arcu.