মার্চ ২৩, ২০১৮

প্রিয় পিয়াসকে শেষ বিদায়

লাশবাহী গাড়ীর জানালা থেকে পিয়াসকে এক নজর দেখে নিচ্ছেন স্বজনরা-বরিশাল নিউজ

নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ডা.পিয়াস রায় এর মরদেহ শুক্রবার রাত তিনটার দিকে বরিশাল এসে পৌঁছায়। লাশবাহী গাড়ীটি নগরীর গফুর লেনের বাড়ীতে পৌঁছানোর পর সেখানে শোকে স্তব্ধ হয়ে যান সবাই। জীবিত নয়, মরদেহের জন্য ১০দিনের অপেক্ষা শেষে প্রিয় পিয়াসকে একনজর দেখার জন্য ব্যাকুল হয়ে উঠেন স্বজন ও শুভাকাঙ্খীরা ।
গাড়ীর জানালার গ্লাস থেকে বাক্সবন্দী পিয়াসকে একে একে এক নজর দেখে নেন তারা ।
বাড়ীর ভিতরে তখন পাগল প্রায় মা পূর্ণা রানী মিস্ত্রীর আহাজারি।
পরে সকাল সাড়ে সাতটায় পিয়াসকে নেয়া হয় জিলা স্কুল ক্যাম্পাসে। সাবেক ছাত্র পিয়াসকে শ্রদ্ধা জানান জিলা স্কুলের শিক্ষকসহ সাধারণ মানুষ। বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মু.জিয়াউল হক সহ সর্বস্তরের মানুষে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান তাকে । সকাল ১০টায় বরিশাল মহাশ্মশানে তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয়।
পিয়াসের মরদেহ ঢাকা থেকে সরাসরি বরিশাল আনার কথা থাকলেও গোপালগঞ্জের শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের শিক্ষক ও সহপাঠিদের অনুরোধে রাত ১০টার দিকে পিয়াসকে সেখানে নেওয়া হয় । কলেজ ক্যাম্পাসে তাকে শেষ বিদায় জানান তার শিক্ষক ও সহপাঠিরা।
১২ মার্চ নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় ২৬ বাংলাদেশীসহ মোট ৪৯ জনের প্রাণহানি হয়েছে।
এদের মধ্যে ১৯ মার্চ ২৩ জনের মৃতদেহ বাংলাদেশে পাঠানো হয়। বাকি তিনজনকে তখনও সনাক্ত করা যায়নি।

১৬ মার্চ পিয়াসের বাবা সুখেন্দু বিকাশ রায় নেপাল গিয়েছিলেন ছেলের মরদেহ সনাক্ত করতে, কিন্তু পারেননি। ১৯ মার্চ তিনি দেশে ফিরে আসেন। এর দুইদিন পরেই ওই তিনজনের মরদেহ সনাক্ত করা হয়। এদের মধ্যে পাওয়া যায় পিয়াসকে।
বরিশাল নিউজ/এমএম হাসান

Subscribe to the newsletter

Fames amet, amet elit nulla tellus, arcu.